রাজ্য

রাজ্যে কোথাও এনআরসি হবে না বলে দাবি বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের।

সিএএ এবং এনআরসি নিয়ে সারাদেশ উত্তাল। দেশের প্রতিটি প্রান্তে এই নিয়ে চলছে চরম ক্ষোভ বিক্ষোভ। পাশাপাশি শাসকদল মানুষকে বোঝাতে উঠে পড়ে লেগেছে যে সবটাই বিরোধীদের অপপ্রচার। কিন্তু মানুষের মধ্যে যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়ছে তা একপ্রকার নিশ্চিত।বিভিন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে এবার বিজেপি নেতা মুকুল রায় মুখ খুললেন। তিনি সিএএ নিয়ে বলেন “রাজ্যে এনআরসি কোনোভাবেই হচ্ছে না। সিএএ-তে একজনেরও নাম বাদ যাবে না। কারো নাগরিকত্ব যাবে না। বরং আরও কিছু মানুষকে নতুন করে নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। যাঁরা মিথ্যা বলে ভুল প্রচার করছেন তারা মানুষের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা তৈরি করতে চাইছেন, তারা অন্যায় করছেন।” তারাপীঠে পুজো দিয়ে ঠিক এমনটাই দাবি করলেন তিনি।

মন্দির থেকে পুজো দিয়ে বেরিয়ে তিনি বলেন, “পরিবারের সকলের তরফ থেকে তিনি পুজো দিতে এসছিলেন। তিনি আরো বলেন, “যারা সিএএ-র বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছেন তারা ভুল করছেন। এটা সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। সুপ্রিম কোর্ট এই রায়ে মান্যতা দিয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালত এই আইনে কোনও স্থগিতাদেশ দেয়নি।এনআরসি হবেই এমন কথা অমিত শাহ কোথাও বলছেন না। এমনকি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় এনআরসি নিয়ে কখনও কোনও কথাই হয়নি। যা হয়েছে তা নাগরিকত্ব আইন নিয়ে। এই আইনে একজন ভারতবাসীরও নাগরিকত্ব যাবে না বরং আরও কিছু মানুষকে ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। রাজ্যস্তরের নেতারা যদি এই নিয়ে কিছু বলে থাকেন তাহলে তিনি ভুল বলেছেন”।

সব মিলিয়ে মুকুল এক দিকে ড্যামেজ কন্ট্রোল, অন্যদিকে রাজ্যের বেশ কিছু বিজেপি নেতা ক্রমাগত সিএএ নিয়ে যা বলছেন পক্ষান্তরে তারও সমালোচনা করলেন বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। অন্যদিকে বিরোধীরা বলছেন বিজেপির কার কথা সত্য তা বোঝা মুশকিল। নরেন্দ্র মোদী এক কথা বলেন, অমিত শাহ আরেক কথা বলেন। আবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ যে কথা বলেন, উল্টো কথা বলেন মুকুল রায়। বিজেপি দায়িত্ব নিয়ে মানুষকে ক্রমাগত বিভ্রান্ত করে চলেছে।

Loading

Leave a Reply