সাহিত্য

অসহায় প্রভু

তুলোশী চক্রবর্তী :- প্রতিনিয়ত নতমস্তকে করে প্রভুরে সন্মান
তাই ভৃত্যের প্রতি প্রভুর থেকে যায় পিছুটান,
মনের ভাজে ধীরে ধীরে
ভৃত্য প্রভুরে খোজে অগোচরে,
যদিও বন্ধুত্ব তাদের বিনা আলিঙ্গনে
প্রভুর মনে হয় তবু ভৃত্য তারে বেঁধেছে এ কোন বাঁধনে,
একের দুঃখে অন্যের সমবেদনা জাগে
হাসি খুসি মজা করেই তাদের দিন কাটে,
তাই প্রভু ভৃত্যের রয়ে গেছে একতা

আর প্রানের বন্ধুত্বতা,
প্রভুর বয়স যখন পার হলো আশি
সমবয়সি ভৃত্য প্রভুর সেবা করে হাসি হাসি,
কালের নিয়মে যে দিন ভৃত্য হলো পরলোকগত
সেদিন থেকে প্রভুর নেই সুখ শান্তি পূর্ব মতো,
ছেলে আছে বৌমা আছে আরো আছে নাতিনেরা
নানা কাজে ব্যস্ত ,বৃদ্ধকে দেখার সময় পায়না তারা ,
ভৃত্য হীন প্রভু ঘরে বসে করে হায় হায়
স্ত্রী মরে গেলেও হইনি এতো অসহায়,
আজ শেষ বয়সে শেষ জীবনে
আপনজন দের ছেড়ে কি যেতে হবে বৃন্দাবনে?

6,177 total views, 1 views today

Leave a Reply

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: