ফিচার

2021 বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি কে সবথেকে বেশি ভুগতে হবে একমাত্র এই কারণ টির জন্য।

বব দত্তঃ সামনে পৌরভোট। আর পৌর নির্বাচন মিটলেই রাজ্যে বিধানসভা ভোটের দামামা বেজে উঠবে। মনে করা হচ্ছে বিধানসভা নির্বাচনের নেট প্যাকটিস পৌর নির্বাচন। বিজেপি একপ্রকার ধরেই নিয়েছে তারা হাসতে হাসতে এ রাজ্যে ক্ষমতায় চলে আসবে। বাস্তব কি তাই? এই মুহূর্তে রাজ্যের পরিস্থিতি কি বিজেপির অনুকূলে? রাজনীতিতে সবই সম্ভব। তার পরেও 2021শে বিজেপির রাজ্য দখল খুব একটা সহজ হবে না বলেই আমার ব্যক্তিগত মত। 2021 বিজেপি ক্ষমতায় আসার জন্য যে ত্রুটি গুলি প্রকট তার মধ্যে অন্যতম হলো এই মুহূর্তে রাজ্য বিজেপির স্বচ্ছ নেতৃত্বের অভাব। লোকসভা নির্বাচনে দুই থেকে আঠারো হয়ে গেলেও দিলীপ ঘোষ যে রাজনৈতিক দলের প্রধান মুখ সেই দলের পক্ষে খুব বেশি দূর এগোনো অসম্ভব। আরএসএসের ব্যাকআপের জন্য দিলীপ ঘোষ ছয় বছরে হাফ প্যান্ট থেকে দলের সর্বময় কর্তা হলেও তিনি যেভাবে দিনের পর দিন বাঙালিকে অপমানিত করছেন তা কতদিন এ রাজ্যের সুস্থ মানুষ মেনে নেবেন তার যথেষ্ট আশঙ্কা আছে। রাজনীতি করতে হলেই যে চুড়ান্ত অসভ্য বর্বর দের মত কথা বলতে হবে তা নিশ্চিত ভাবেই নয়।

কিন্তু দিলীপ বাবু বেশ কিছুদিন ধরে যে ভাষায় কথা বলছেন তা সুস্থ সংস্কৃতির পক্ষে যথেষ্ট অশনি সংকেত। এই সমস্ত কথা বার্তা বলে বাজার গরম করা যায় কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদী রাজনীতি করা যায় না। অন্যদিকে রাজনৈতিক মস্তিষ্ক দিয়ে ভাবলে পরিষ্কার হয়ে যাবে দিলীপ বাবুকে মুখ্যমন্ত্রী প্রজেক্ট করা হবে এমন চিন্তা-ভাবনা যদি বিজেপির উচ্চ নেতৃত্বের থাকত তাহলে তাকে সাংসদ করে দিল্লী নিয়ে যাওয়া হতো না। দীর্ঘ 34 বছরের বাম শাসনের পতন ঘটানো মূল কারিগর যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হয় তাহলে তার পিছনে মস্তিষ্ক ছিলেন মুকুল রায়। সেই মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর তৃণমূল ভাঙতে শুরু করে। একাধিক সাংসদ, বিধায়ককে ভাঙিয়ে বিজেপিতে নিয়ে গেছেন মুকুল বাবু। মুকুল রায় কোনোকালে আরএসএস না করলেও আস্তে আস্তে দলের কমান্ডার হয়ে উঠছিলেন। মনিরুল কে বিজেপিতে যোগদান করানোর পরেই অনেকটা ব্যাকফুটে তিনি। হঠাৎ করেই এরপর থেকে লাইমলাইট থেকে কিছুটা হলেও সরে গেছেন মুকুল রায়।

শোনা যাচ্ছে তাকে মন্ত্রী করা হতে পারে। সবকিছু ঠিক থাকলে রাজ্যসভার সাংসদ করে মন্ত্রিত্ব দেওয়া হবে। কিন্তু প্রশ্ন এতে কি মুকুল রায় কে সম্মান জানানো হলো, নাকি কায়দা করে রাজ্য থেকে মুকুলবাবু কেও সরিয়ে দেওয়ার প্রচেষ্টা শুরু হলো? তা যদি হয় এটা পরিষ্কার যে দিলীপ ঘোষ বা মুকুল রায় কেওই বিজেপি মুখ হচ্ছে না। তাহলে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির এ রাজ্যে মুখ কে? কাকে সামনে রেখে ভোটে লড়াই করবে বিজেপি? বিজেপির যা ইতিহাস তাতে করে পরবর্তী সময় যদি ক্ষমতার কাছাকাছি তারা চলে আসে তাহলে যোগী আদিত্যনাথ এর মত কাউকে খুঁজে বের করা হতে পারে। কিন্তু নির্বাচনের ময়দানে এই মানুষটি কে? এই নিয়ে বিজেপি নেতৃত্ব নিশ্চিত ভাবেই চরম অস্বস্তিতে আছে। বিজেপিতে এমন কোন মুখ নেই যাকে সামনে রেখে 2021 বিধানসভা নির্বাচনে তারা লড়াই করবে। আসল খেলা বিজেপি নয়, আরএসএস খেলবে। এ ব্যাপারে 100% নিশ্চয়তা থাকলেও যেকোনো দলের এমন একজন নেতৃত্ব প্রয়োজন যাকে দেখে রাজ্যের সর্বস্তরের মানুষ এগিয়ে আসবে, ভরসা করবে। আর যাই হোক দিলীপ ঘোষ সেই মুখ নয়। অতি দ্রুত এমন কোন মুখ তৈরি করাও সম্ভব নয় যাকে রাজ্যের সমস্ত মানুষ নিজেদের ভরসাস্থল বলে মনে করবেন। দিলীপ বাবুকে দিয়ে বাজার গরম করা যায়, দিলীপ বাবুকে দিয়ে একশ্রেণীর লেঠেল দের মন জয় করানো যায়, দিলীপ বাবুকে দিয়ে আর যাই হোক সুস্থ সংস্কৃতির পক্ষে থাকা মানুষের ভোট পাওয়া যায় না। আর 2021 বিধানসভা নির্বাচনে এটিই হবে রাজ্য বিজেপির জন্য বড় বিপদ,অশনি সংকেত।

 268 total views,  3 views today

Leave a Reply