জেলা

কাজের টোপ দিয়ে ১ মহিলাকে হাত-পা বেঁধে রাখার অভিযোগে গ্রেপ্তার ২।

কাজের নাম করে নিয়ে গিয়ে এক মহিলার হাত-পা বেঁধে রাখার অভিযোগ উঠলো ২ যুবকের বিরুদ্ধে। নিজের সম্ভ্রম বাঁচাতে একতলা বাথরুমের জানালা দিয়ে ঝাঁপ দিয়ে গুরুতর জখম ওই মহিলা বর্তমানে চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনায় অভিযুক্ত ২ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জখম ওই মহিলা মগরা থানার অন্তর্গত সপ্তগ্রামের ছোট খেজুড়িয়ার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পেশায় রং-মিস্ত্রী ওই মহিলাকে সানি মাইতি(মুন্না), হাওড়ার নিশ্চিন্দা থানা এলাকার চাঁদমারিতে জনৈক আরতি সরকারের বাড়িতে রং-এর কাজ আছে বলে নিয়ে যায়।

সোমবার সকালের দিকেই ওই বাড়িতে পৌঁছান মহিলা। এরপর দুপুরে খাওয়া দাওয়ার পর হঠাৎই ঘড়ের দরজা বন্ধ করে দেয় মুন্না। তখনই ওই ঘরে চলে আসে মুন্নার আর এক শাগরেদ রোহিত জয়সওয়াল। মহিলার অভিযোগ তারা দুজন তাঁর হাত-পা বেঁধে দেয়। চুঁচুড়া হাসপাতালের বেডে শুয়ে ওই মহিলা বলেন অনেক অনুরোধ করার পর তাঁর পায়ের বাঁধন খুলে তাঁকে বাথরুমে যেতে দেয়। নিজেকে বাঁচাতে নির্মীয়মান ওই বাথরুমের খোলা জানালা দিয়ে নীচে ঝাঁপ দেয় মহিলা। বাইরে থাকা অন্যান্যরা ওই মহিলাকে পরে যেতে দেখে প্রথমে বেলুর হাসপাতাল এবং পরে চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করেন। এবিষয়ে নিশ্চিন্দা থানায় করা অভিযোগের ভিত্তিতে এদিন রাতেই অভিযুক্ত মুন্না ও রোহিতকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ঘটনার পর কর্মক্ষেত্রে মহিলাদের সুরক্ষা নিয়ে ফের প্রশ্ন তুলেছেন সাধারণ মানুষ।

 10,315 total views,  90 views today

Leave a Reply