স্বাস্থ্য

চুল পড়া থেকে খুসকি ও মাথার রেস দূর করতে অ্যালোভেরা জেলের ব্যাবহার।

জেনে নিন ঘরোয়া সহজ পদ্ধতিতে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করে কিভাবে চুলের যত্ন নেবেন। ঘৃতকুমারি বা অ্যালোভেরা জেল এর মধ্যে থাকা ভিটামিন সি যা আমাদের শরীরে ভীষণভাবে কাজে লাগে। আমাদের চুলে অ্যালোভেরা জেল অত্যন্ত মূল্যবান। সে কারণে খুব সহজ পদ্ধতিতে জেনে নিন কিভাবে অ্যালোভেরা ব্যবহার করে আপনার চুলের পরিচর্যা করবেন। এটি ব্যবহার করলে আপনার চুল ওঠা বন্ধ হবে, খুশকি নির্মূল হবে, চুল সিল্কি এবং শাইনি হবে। বাজার থেকে অ্যালোভেরা জেল কিনে ব্যবহার করলেও ফল পাবেন। কিন্তু তার থেকেও বেশি ফল পাবেন অ্যালোভেরা গাছের পাতা ব্যবহার করে। আনারসের মতো কাঁটাযুক্ত পাতাটি আপনি খুব সহজেই আপনার বাড়িতে বা ফ্ল্যাটে যেকোন জায়গায় লাগিয়ে দিলে খুব কম সময়ে এবং খুব সহজেই এটি বৃদ্ধি লাভ করবে। অনেকের স্কিনে অ্যালোভেরা জেল লাগানোর পরে অস্বস্তি হতে পারে। তার কারণ হলো অ্যালোভেরা গাছের মধ্যে থাকা অ্যালোলেটিকস্ জেল। সে কারণেই গাছ থেকে পাতা টি তুলে আনার পর ঘণ্টা ২-৩ সেটি ফেলে রাখুন। তারপরে পাতাটিকে পরিষ্কার ভাবে ধুয়ে ফেলুন এবং তারপর পাতাটি কেটে কাঁটা বাদ দিয়ে চামচ দিয়ে বা আপনার যেটি সহজ পদ্ধতি মনে হয় সেভাবেই বের করে নিন জেলটি। এবার জেনে নিন জেল এর ব্যবহার।

১. যেদিন আপনি চুলে শ্যাম্পু করবেন তার আগের দিন রাতে অ্যালোভেরা জেল মাথার স্কাল্প এবং চুলে লাগিয়ে নিন। পরের দিন সকালে ভালো করে চুল শ্যাম্পু করে দেখুন আপনার চুল সিল্কি এবং শাইনি হয়ে যাবে। সপ্তাহে দুদিন আপনি এটি ব্যবহার করতে পারেন। অনেক সময় চুল শ্যাম্পু করতে গেলে হেয়ার ফল দেখা যায়। আপনার যদি ঠান্ডা লাগার ধাত থাকে তাহলে আপনি এটি সকালে লাগিয়ে ঘন্টা খানেক বা ঘন্টাদুয়েক রেখে শ্যাম্পু করে ফেলতে পারেন। আপনি এটা এক মাস ব্যবহার করার পর দেখবেন অনেকটাই চুল ওঠা বন্ধ হয়ে গেছে এবং প্রথমবার ব্যাবহারেই আপনি ফল বুঝতে পারবেন। শ্যাম্পু করার সময় যে হেয়ার ফল হয় সেটিও হচ্ছে না।

২. আরো একটি সহজ উপায় হল দু’চামচ অ্যালোভেরা জেল নিয়ে তার সাথে অল্প পরিমাণ নারকেল তেল মিশিয়ে নিন এবং তার সাথে নিন পেঁয়াজের রস তারপর একটি পাত্রে জল গরম করে যে পাত্রে নারকেল তেল এবং অ্যালোভেরা জেল মিশিয়েছেন সেই পাত্রটি রেখে গরম করে নিন। ঈষদউষ্ণ অবস্থায় সেটি মাথায় লাগান এতে ফল পাবেন।এখেত্রেও রাতে ব্যাবহার করে সকালে শ্যাম্পু করুন।

৩. অ্যালোভেরা জেল তার সাথে একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে হালকা হাতে চুলে এবং স্ক্যাল্পে লাগান। ভিটামিন ই ও চুলের উপকারী। সপ্তাহে একদিন করলেই আপনি এর ফল অনুভব করতে পারবেন।মাসে চার দিন ব্যাবহার করুন।
এছাড়াও আপনি কোন অনুষ্ঠান বাড়িতে যাচ্ছেন সেই সময়ে বাজারের কোন জেল ব্যবহার না করে আপনি একটি ঘরোয়া পদ্ধতিতে জেল বানিয়ে নিন। সেটি ব্যবহার করলে আপনার চুল ভীষণ শাইনি হয়ে যাবে। একটি স্প্রে করার পাত্র নিন এরপর ওই স্প্রে মেশিন টার মধ্যে দুই চামচ জেল দিন, এক কাপ মতন জল দিয়ে সুন্দরভাবে মিশ্রণ তৈরি করে, চুল সুন্দর করে স্টাইল করে নিয়ে চুলের মধ্যে স্প্রে করুন। একবার করে দেখুন ফল বুঝতে পারবেন। অার এটি দীর্ঘক্ষন সময় অাপনার চুলকে ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

 2,526 total views,  67 views today

Leave a Reply